Monday, October 2, 2023
HomeTechnologyব্লগিং করে আয় করুন মাসে ১০০ ডলারের উপরে

ব্লগিং করে আয় করুন মাসে ১০০ ডলারের উপরে

ব্লগিং করে আয় করা আদৌ কতটুকু সম্ভব এটা সবার মনে একটা প্রশ্ন। কিন্তু ব্লগিং করে কিভাবে আয় করা যায়, কোন কোন উপায় অবলম্বন করা যায়, কোন পলিসি Follow করলে ভাল আয় করা সম্ভব এসব প্রশ্ন সবার মনে ঘুরপাক খায়।

অনলাইন থেকে আয় করা আদৌ কতটূকু সম্ভব এটা জানতে হলে ধৈর্য্য ধরে আপনাকে এই পোস্টটি পড়তে হবে।

প্রথমে জেনে নিই অনলাইনে কোন কোন প্লাটফর্ম থেকে সহজে ইনকাম করা যায়।

অনলাইনে ঘরে বসে ইনকাম করুন এখনইঃ

আমরা যারা স্টুডেন্ট আছি আমরা সব সময় চিন্তা করি যদি আমার অলস সময় কাটানোর মত কোনো মাধ্যম থাকতো যেখান থেকে আমি ঘরে বসেই ইনকাম করতে পারতাম!

এটা কি সম্ভব কিনা?

-উত্তর হ্যা সম্ভব।

কিন্তু আউটসোর্সিং কি সেটাতো জানিনা। তাহলে ঘরে বসে অনলাইন ইনকাম করুন এটা আর সম্ভব হবে কিনা?

– হ্যা, আউটসোর্সিং এর কোনো প্রাইমারি ধারণা না থাকলেও আজকে আমরা দেখবো কিভাবে মুহুর্তের মধ্যেই ইনকাম করা সম্ভব।

তবে হ্যাঁ এটার জন্য আপনাকে মানসিক ভাবে শক্ত হতে হবে। ধৈর্য্য ধরার মত মানসিকতা থাকতে হবে। না হয় ঘরে বসে আয় করা অবশ্যই সম্ভব নাও হয়ে উঠতে পারে।

 

কিভাবে ঘরে বসে আয় করা যায়ঃ

ঘরে বসে আয় করার বর্তমানে সব চেয়ে বড় প্ল্যাটফর্ম হচ্ছে ইউটিউব, ব্লগিং, ফাইবার, পাইয়োনিয়ার, ফ্রিল্যান্সিং ডট কম ইত্যাদি।

তো চলুন কিভাবে এসব প্ল্যাটফর্মে কাজ করে টাকা ইনকাম করা যাবে তার একটা ধারণা নেওয়া যাক।

ধরুন আপনি গান গাইতে, কবিতা আবৃতি করতে অথবা ঘুরতে ভালবাসেন। আপনি রোজ গান গাইতে থাকেন কিংবা কবিতা আবৃতি করতে থাকেন। অথবা ধরুন আপনি লেখালেখি করতে ভালবাসেন।

লেখালেখিটা যেন আপনার নেশা। কবিতা, গল্প, সমসাময়িক সব বিষয়েই আপনি লেখে থাকেন। অথবা ধরুন আপনি পড়াতে ভালবাসেন। নয়তু ধরুন আপনার মাঝে এমন কোনো ক্রিয়েটিভিটি আছে যেটার জন্যে আপনি আপনি আর ১০ জন মানুষকে সাহায্য বা উপকার করতে পারবেন।

এই সবের কোনো গুন যদি আপনার মাঝে থেকে থাকে তাহলে আমি বলবো আপনি অনলাইন থেকে ১০০% ইনকাম করতে পারবেন।

এখন একটা প্রশ্ন! তাহলে কোন ধরনের ইউটিউবিং করবো বা কোন ধরনের ব্লগিং করবো অথবা ফাইবারে কোন ধরনের কাজ করলে অনলাইন আয় বেশি হবে। মাসের পর মাস ডলার ইনকাম করতে পারবো।

তো চলুন দেখে নেওয়া যাক কোন কোন বিষয়ের উপর আপনি কাজ করবেন।

 

ইউটিউব থেকে আয় করুন মাসে ২০০ ডলারের উপরঃ

ইউটিউব থেকে আয় করুন মাসে ২০০ ডলারের উপরে কথাটি অবিসাশ্য মনে হলেও এর চেয়েও আপনি বেশি ইনকাম করতে পারবেন।

তবে হ্যাঁ আপনাকে একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলতে হবে। কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল খুলবেন সে বিষয়ে আমার অন্য একটি আর্টিক্যাল আছে। চাইলে পড়ে নিতে পারেন এই ওয়েবসাইটে।

কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল খুলবেন সে সিদ্ধান্তের চেয়ে আপনাকে বড় যে সিদ্ধান্তটা নিতে হবে তা হলো ইউটিউবে নিশ সিলেক্ট করা।

নিশ বা Niche কিঃ

নিশ হলো কোনো ব্লগিং বা ইউটিউবের অথবা ডিজিটাল মার্কেটিং এর এমন একটি বিষয় যা আপনাকে ইউনিক পরিচয় দিবে।

যেমন ধরুন আপনি একজন ফুড ব্লগার। তাহলে আপনার নিশ হবে ফুড রিলেটেড। আবার মনে করুন আপনি একজন ট্রাভেল ব্লগার। তাহলে আপনার নিশ হবে ট্রাভেলিং।

এভাবে আপনাকে জনপ্রিয় নিশ নিয়ে কাজ করতে হবে। তাহলে এবার চলুন আমরা এরকম ১০ টি জনপ্রিয় নিশ ( Niche ) দেখে নিই যেগুলো নিয়ে কাজ করলে আপনি অনলাইন থেকে প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

Best Niches To Start Youtube Channel in 2021


Unboxing

Unboxing niche বা আনবক্সিং নিশ আইডিয়া হচ্ছে এমন একটি নিশ রিলেটেড আইডিয়া যেখানে অথর তার প্রোডাক্ট অডিয়েন্সের উদ্দেশ্যে খুলবে। এটা হতে পারে মোবাইল, ল্যাপটপ, নিত্য প্রয়োজনীয় খাবারের প্যাকেট অথবা ইলেক্ট্রনিক্স কোনো পণ্য।

তো এটা করে আয় করা যাবে ইউটিউবে এফিলিয়েট করে, তাছাড়া গুগল এডসেন্স থেকে তো ইনকাম আছেই।

Tech and Gadget Reviews

টেকনোলজির যুগে বর্তমানে অনলাইনে অহরহ ইলেক্ট্রনিক পণ্যের চাহিদা বাড়ছে। বাড়ছে সে সবের ব্যবহার। আপনি আপনার কথাই চিন্তা করুন। ধরুণ, আপনি ইউটিউবিং করবেন। তো এই ইউটিউবিং এর জন্য আপনার কিছু প্রাইমারি জিনিস লাগবে।

যেমন মনে করুনঃ

  • Camera
  • Stand
  • Photo Studio
  • Video Editor ইত্যাদি

এখন আপনি যদি এসব কিনতে যান তাহলে আপনি নিশ্চয় ইউটিউবে একবার হলেও সার্চ দিয়ে দেখবেন কোন ক্যামেরাটি আপনার জন্য ভাল, কোন স্ট্যান্ডটি আপনার জন্য ভাল।

এই যে আপনি সার্চ দিচ্ছেন এরকম আরও হাজার হাজার মানুষ প্রতিদিন ইউটিউবে সার্চ দিয়ে তার কাঙ্খিত প্রোডাক্টির রিভিউ দেখছে।

আপনি যদি ইউটিউবিং করতে চান এবং আপনি যদি ভাল একটা নিশ খুজতে চান তাহলে Tech and Gadget Reviews নিশ হবে আপনার জন্য একটা সেরা চয়েজ।

Life Hacks

যেকোনো মানুষ বর্তমানে নতুন কিছু শিখতে চায়। শিখার যেন শেষ নাই। মানুষের এই নিত্য নতুন চাহিদার মধ্যে লুকিয়ে আছে ল্যাফ হ্যাকস।

Life Hacks ঠিক কি জিনিস তা জানতে হলে একটা উদাহরণ দেওয়া যাক।

Life Hacks হলো মানুষের ক্রিয়েটিভি দিয়ে সহজ কিছু উপস্থাপন করা। সহযে কোনো জিনিসের সল্যুশন বের করে দেখাতে পারাটাই হলো লাইফ হ্যাকস। এক্ষেত্রে দর্শক ভিড়িওটি পুরো দেখতে কোনো কার্পণ্য বোধ করবেনা।

Top X lists- Best For the youtuber

বর্তমান সভ্যতা বেড়ে যাওয়ার সাথে সাথে মানুষের প্রতিযোগিতাও যেন দিন দিন বেড়েই চলেছে। তাই দর্শকরা যেকোনো কিছুতে পরিসংখ্যান বিবেচনা করে। আপনি যদি লাইফের যেকোনো  ইভেন্টের টপ-১০ লিস্ট করে আপনার ইউটিউবে দিতে পারেন তবে একদিকে যেমন আপনার ইনকাম বাড়বে তেমনি ভিজিটররাও আপনার ভিড়িও দেখে মজা পাবে।

Fail Compilations

Fail Compilations হচ্ছে এমন একটি আইডিয়া যে আইডিয়া আপনাকে অনলাইন জগতে ইনকামের পরিধি দিন দিন বাড়িয়ে দিবে।

প্রত্যেক মানুষ জীবনের কোনো না কোনো স্টেপে গিয়ে চিন্তা করে তার একটু বিনোদন দরকার। তো সে বিনোদনের জন্য ইউটিউবে সার্চ দেয় Best comedy, Best Laughing things, Best Comedy Movie, Best Film 2021 , best comedy netflix, best comedy movies, best comedy movies of all time, Bangla funny video, funny video, Best funny video, Best funny 2021,fail compilations ইত্যাদি।

আপনি যদি আপনার ক্রিয়েটিভিটি দিয়ে মানুষের চিন্তার ভাজকে একটু হাসিতে রূপান্তর করতে পারেন তাহলে Fail Compilations নিশটি হবে আপনার জন্য বেস্ট অপশন।

Health and Fitness Tips

Health and fitness Tips হতে পারে ২০২১ সালে আপনার জন্যে একটা বেস্ট নিশ। এই নিস নিয়ে কাজ করলে আপনি অর্গানিক ভিজিটর যেমন পাবেন তেমন পাবেন গুগল এডসেন্স থেকে প্রচুর টাকা।

আপনি আপনার কথাই বিবেচনা করুন। আপনার যখন শরীরে কোনো কিছু হয় তখন দ্রুত গতিতে আপনি হয় গুগলে সার্চ দেন নাহয় আপনি ইউটিউবে সার্চ দেন। খুঁজ নিয়ে দেখেন কোন হেলথ টিপসটি আপনার জন্যে পারফেক্ট।

ঠিক সেভাবে আপনিও যদি আপনার ইউটিউবে বিভিন্ন হেলথ টিপস এবং ফিটনেস টিপস নিয়ে ভিড়িও দিতে পারেন তাহলে আপনার অনলাইন ইনকামের স্বপ্ন অবশ্যই অবশ্যই পূরণ হবে।

World or Local News

নিউজ মিডিয়া নিশ নিয়ে কাজ করাও বর্তমানে একটা ভাল ইনকামের উপায়। এর জন্যে আপনি লোকাল বা গ্লোবাল যেকোনো নিউজ আপনার ভিড়িওতে দিয়ে ইনকাম করতে পারেন।

তাছাড়া বিভিন্ন সেলিব্রিটি ব্যাক্তিবর্গের ইন্টারভিউ নিয়েও আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেলের ভিজিটর বাড়াতে পারেন।

Food and Restaurant Reviews

ফুড এন্ড রেস্টুরেন্ট রিভিউ নিয়ে কথা বলার আগে আমরা আরেকবার আমাদের প্রাত্যাহিক জীবন নিয়ে চিন্তা করি। আমরা যখন কোনো জায়গায় নতুন ঘুরতে যায় তখন আমাদের মাথার ভিতর কয়েকটি চিন্তা থাকে।

  • খাবার
  • ভাল মানের হোটেল
  • যাতায়াত খরচ ইত্যাদি

আমরা এইসব সমস্যা থেকে কেটে উঠতে পারি মত ইউটিউবে খুঁজ করে দেখি ওই এলাকার খাবার এবং হোটেলের অবস্থা কেমন। এছাড়াও আমরা দেখি ঐ এলাকায় যেতে আমাদের খরচ কেমন পড়ে।

আপনি যদি আপনার ইউটিউবে মানুষের যেন হেল্প হয় সেই চিন্তা করে উপরোক্ত বিষয় গুলা ভিড়িও বানান তাহলে অর্গানিক ভিজিটর যেমন পাবেন তেমন ইউটিউব থেকেও অনেক ইনকাম করতে পারবেন।

নিশ সিলেক্ট করে ব্লগিং করাটা যেন এক ধরনের নিঞ্জা টেকনিক বা বলতে পারি সিক্রেট বিষয় যেটা আপনাকে অনলাইন থেকে ইনকাম করতে খুব সাহায্য করবে।

Cooking Videos

ইউটিউবে রান্না-বান্না শিখানো নিয়ে কাজ করাটা হবে best niches for youtube 2021 । এর কারণ যদি বলি তাহলে আমাদের নিত্য দিনের কথা চিন্তা করুন। আমরা কিন্তু একটা ডিম ভাজতেও ইউটিউবে সার্চ দিয়ে দেখি কিভাবে ভালভাবে ডিম ভাজতে হয়।

এভাবে আমরা প্রতিদিন cooking videos, kids cooking videos, brenda gantt cooking videos, cooking videos for kids, cooking videos on you tube, cooking videos youtube, kid cooking videos, কিভাবে মজা করে রান্না করতে হয়, কিভাবে নুডলস রান্না করতে হয়, ইফতার বানাইতে হয়, কিভাবে কাচ্চি রান্না করতে হয়, কিভাবে বিরিয়ানি রান্না করতে হয় ইত্যাদি লিখে খোজ করতে থাকি।

আপনি যদি কুকিং নিয়ে ব্লগিং করতে পারেন তাহলে ইউটিউবে এই নিশ হবে আপনার জন্য বেস্ট অপশন।

Makeup and Beauty

Mackeup and Beauty Niche নিয়ে কাজ করা বর্তমানে আরেকটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ  মাধ্যম। আপনি আপনার নিত্য দিনের সাজগোজের যেমন ইউটিউবে খুজেন তেমনি হাজার হাজার মানুষ প্রতিদিন ইউটিউবে কিংবা গুগলে খুঁজে।

এভাবে কাজ করলে একদিকে প্রচুর অর্গানিক ভিজিটর নিয়ে যেমন গুগল থেকে ইনকাম করতে পারবেন তেমনি এফিলিয়েট বা স্পন্সর থেকে আপনি অনেক অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

 

ব্লগিং ক্যারিয়ারে আপনাকে নিশ সিলেক্ট করে কাজ করলে আপনাকে অনেক আগায় রাখবে। 

Bonus Tips:—

বোনাস টিপস হিসেবে উল্লেখযোগ্য নিশ সম্পর্কে চলুন জেনে নিই।

Travel Blogging

যারা ঘুরতে ভালবাসেন তাদের জন্য ব্লগিং হবে একদম পারফেক্ট একটা নিশ। আপনি যেমন ঘুরতে ভালবাসেন এবং ঘুরতে গেলে আপনার যেসব জিনিস দরকার পড়ে অনেকের সেই দরকার গুলো গুরুত্বপূর্ণ। তাই আপনি যে জায়গায় ঘুরতে যান সেই জায়গা সম্পর্কে যদি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য গুলো আপনি আপনার ভিড়িওতে দিয়ে দিতে পারেন তাহলে অনেকের উপকার হবে।

এতে করে আপনার ভিজিটর বাড়বে আর ভিজিটর বাড়লে আপনি গুগল থেকে, বিভিন্ন হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট থেকে স্পন্সর ইত্যাদি উপায়ে ইনকাম করতে পারবেন।

যেসব বিষয় গুলো আপনার ভিড়িও তে রাখলে বেশি ভিজিটর পাবেনঃ

  • সুন্দর দেখার মত জায়গা
  • খাবার, বিখ্যাত খাবার এবং খাবার খরচ
  • যাতায়ত খরচ
  • থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা, হোটেলের ব্যবস্থা
  • সুন্দর জায়গার ছবি, ভিড়িও
  • ঐ এলাকার মানুষের সাথে মিশতে জানা, কথা বলা

 

উপরে উল্লেখিত যেসব নিশ গুলো নিয়ে ইউটিউবে ভিড়িও বানানোর কথা বলা হয়েছে ঠিক একই নিশ নিয়ে যদি আপনি ব্লগার বা ওয়ার্ডপ্রেসে লেখালেখি করে ব্লগিং করেন তাহলেও আপনি একই পরিমান আয় করতে পারবেন।

How To Become Success in Blogging – ব্লগিং এ কিভাবে সফল হবেন?

  • WordPress, Tumlr, TypePad, Blogger ইত্যাদি কোনো একটা দিয়ে শুরু করতে হবে।
  • SEO Friendly Content Writing সম্পর্কে জানতে হবে এবং এসইও ফ্রেন্ডলি পোস্ট লিখতে হবে।
  • Niche সিলেক্ট করার ক্ষেত্রে ভাল নিশ সিলেক্ট করতে হবে।
  • নিজের ফ্যাশনেট বিষয়ে লেখালেখি করতে হবে।
  • Offer value বা অফার ভ্যালু বাড়াতে হবে
  • Focus on Marketing তথা মার্কেটিং এ নিজেকে নিযুক্ত করতে হবে।
  • ডিজিটাল মার্কেটিং, এফিলিয়েট মার্কেটিং নিয়ে কাজ করতে হবে।
  • ভিজিটরদের চাহিদা নিয়ে কাজ করতে হবে।
  • ভিজিটরদের নিয়ে এনালাইস করতে হবে। তারা কি চায় তা কন্টেন্টে রাখতে হবে।
  • কমিউনিটি বাড়াতে হবে। সোশ্যাল মিডিয়ায় স্ট্রং কমিউনিটি থাকতে হবে।
  • ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে কোনো আইডিয়া না থাকলেও হতাশ হওয়া যাবেনা।
  • সব সময় ধৈর্য্য ধরতে হবে।

Blogging mistakes to avoid for affiliate marketing – A Beginners Guide

আপনি যদি লেখালেখি করতে ভালবাসেন তবে ব্লগিং আপনার জন্য অবশ্যই একটি ভাল প্ল্যাটফর্ম। কিন্তু কিছু ভুলের কারণে অনেকে সে ব্লগিং থেকে কাঙ্খিত ফলাফল পায় না।

আজকে আমি কথা বলবো সেরকম কয়েকটি ভুল নিয়ে যেগুলো করা কোনোদিনও উচিৎ নয়। তো চলুন জেনে নেওয়া যাক।

ব্লগিং শুরু করার প্রথম থেকেই ইনকাম করার চিন্তা করাঃ

আমরা যদি একটি ভাল জব নিতে চাই তাহলে আমাদের ১০/১২ বছর খৈ খড় পুড়িয়ে পড়ালেখা করে তারপর একটা ভাল জবের বা ভাল চাকরির জন্য প্রস্তুত হই। ঠিক তেমনি আপনি যদি ব্লগিং করতে চান তাহলে আপনাকে শুরুতে আগে ধৈর্য্য ধরে ভাল আর্টিকেল লিখতে হবে।

আপনি যে নিশ নিয়ে কাজ করবেন সেই নিশ রিলেটেড আগে ৩০/৪০ টা পোস্ট করে তারপর যখন ট্রাফিক আসা শুরু করবে তখন আপনি ভাল মানের এমাউন্ট জেনারেট করতে পারবেন। আপনার কাজ ধৈর্য্য ধরে পোস্ট পাবলিশ করা।

ব্লগিং এ অনেক গুলো এফিলিয়েট নিয়ে কাজ করাঃ

আপনি একটি ওয়েবসাইট দিয়ে ভাল মানের  Amazon, AliExpress, Alibaba দুয়েকটি থেকে Affiliate করুন। কিন্তু একটি ওয়েবসাইট দিয়ে যখন অনেক গুলো এফিলিয়েটের চিন্তা করবেন তখন সেটা আপনার জন্যে অনেক বড় একটা ভুল।

পরবর্তী যে Common mistake নিয়ে কথা বলবো তা হল-

কন্টেন্ট ছাড়া Affiliate এর জন্য Apply করাঃ

চিন্তা করুন আপনার মত কন্টেন্ট রাইটার পৃথীবিতে কতজন আছে। অবশ্যই অনেক কিন্তু তাদের ইনকামের উপায় দেখে আপনি ভাল মানের কোনো কন্টেন্ট ছাড়ায় এপ্লাই করতে যাবেন না। এতে হিতে বিপরীত হবে।

ভাল ভাল ওয়েবসাইট গুলো তাদের প্রোডাক্ট দিতে আগ্রহী কিন্তু তার জন্য আপনাকে আগে কন্টেন্ট বা রিভিউ লেখাতে এক্সপার্ট হয়ে যেতে হবে। নাহয় অনলাইন থেকে ইনকাম আপনার জন্য কঠিন হয়ে যাবে। So, DO NOT APPLY FOR AFFILIATE WITHOUT CONTENT!

 

Affiliate link Spamming বা যেখানে সেখানে link comment করাঃ 

আপনার যদি অনলাইন থেকে ইনকাম করার ক্ষেত্রে খুব মন থাকে তবে এই ভুল টা অর্থাৎ যেখানে সেখানে প্রোডাক্টের কমেন্ট করতে যাবেন না। অনেকে দেখেবন, ইউটিউব ভিড়িওর নিচে, বিভিন্ন ওয়েবসাইটের কমেন্টে, ফেসবুকের বিভিন্ন জনের পোস্টে নিজের প্রোডাক্টের কমেন্ট করে আসেন। এটা অনেকে ভাল চোখে দেখে না।

ডিরেক্ট প্রোডাক্ট লিংক পোস্ট করে দেওয়াঃ

Amazon, AliExpress, Theme forest, Ali Baba ইত্যাদি মাল্টি ন্যাশনাল কোম্পানির প্রোডাক্ত কখনো গুগল এডওয়ার্ডের মাধ্যমে পোস্ট করবেন না। কিংবা বুস্ট করবেন না। এতে করে আপনার ওয়েবসাইট সাস্পেন্ড হয়ে যাবে।

আপনি আপনার ওয়েবসাইট এর বিভিন্ন পোস্টে লিংক দিতে পারেন কিন্তু ডিরেক্টলি বুস্ট করতে যাবেন না।

ডাটা এনালাইসিস না করাঃ 

আপনার ওয়েবসাইটে কোন ধরনের ভিজিটর বেশি। ছেলে বেশি না মেয়ে বেশি, কোন ধরনের ডিভাইজ ইউজকারীরা বেশি, কোন কোন দেশ থেকে আপনার ওয়েবসাইট ভিজিট হয়, তাদের চাহিদা গুলো কি কি সেসব বিষয় এনালাইসিস না করার কারণে দেখবেন ব্লগিং এ মারাত্মক একটা ভুল হয়ে যাবে।

ডাটা এনালাইসিস এর জন্য বেস্ট টুলস হচ্ছে গুগল এনালাইসিস।

অতিরিক্ত এডস শো করাঃ

আপনার কথাই চিন্তা করুন। আপনি যখন কোনো ভিড়িও দেখেন কিংবা পোস্ট পড়েন তখন অতিরিক্ত এডস শো করাটা আপনি পছন্দ করেন না। ঠিক তেমনি কেউ এডভারটাইজমেন্ট পছন্দ করেনা। তাই একটি পোস্টে সর্বোচ্চ তিন টির বাইরে এডস শো না করা।

এতে ভিজিটররা বিরক্ত হয়ে যাবে এবং পরবর্তীতে তারা আর আপনার ওয়েবসাইট ভিজিট করবেনা।

সর্বোপরি ভিজিটরদের ফিডব্যাক থেকে শিখতে হবে। নিচে কমেন্ট বক্সে তারা কি চেয়ে কমেন্ট করে সে বিষয়ে পোস্ট করুন।

 

HAPPY BLOGGING

তো বন্ধুরা, ব্লগিং নিয়ে আমার আজকের পোস্টটি আপনাদের কেমন লেগেছে জানাতে ভুলবেন না। এবং পরবর্তীতে আপনারা কি কি বিষয় জানতে চান সেসব জানাতেও ভুলবেন না। সবাইকে ধৈর্য্য ধরে পড়ার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ।

 

Related News
- Advertisment -

Popular News

error: Content is protected !!