Thursday, February 29, 2024
HomeNewsBangladesh‘সুড়ঙ্গ’ পাইরেসি হলো কীভাবে? বিস্তারিত জানুন

‘সুড়ঙ্গ’ পাইরেসি হলো কীভাবে? বিস্তারিত জানুন

নানা কৌশলে ঢাকার সিনেমা পাইরেসির মতো অবৈধ কাজটি বন্ধ করতে সক্ষম হয়েছিলো ঢালিউড। কিন্তু সেই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার কবলে পড়েছে এ সময়ের আলোচিত ‘সুড়ঙ্গ’ সিনেমাটি। রায়হান রাফীর ‘সুড়ঙ্গ’ যখন সিনেমাটি বাংলাদেশ জয় করে পশ্চিমবঙ্গেও ঝড় তুললো, তখন কোনও একটি পক্ষ সিনেমাটির কপি রেকর্ড করে ছেড়ে দিয়েছে অনলাইনে।

বিষয়টি নজর এড়ায়নি ‘সুড়ঙ্গ’ সিনেমার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান চরকির। ইতিমধ্যেই ইউটিউব ও ফেসবুক থেকে ৪০০-৫০০ ভিডিও নামিয়ে ফেলেছে তারা। আরও বাকি থাকা কিছু ভিডিও দ্রুত সরিয়ে ফেলার চেষ্টা চলছে।

প্রশ্ন হলো, ‘সুড়ঙ্গ’ পাইরেসি হলো কীভাবে? সেটি কি মাস্টার কপি নাকি হল থেকে অন্য ক্যামেরায় রেকর্ড করা? আবার কেউ বলছেন, বাংলাদেশে তো পাইরেসি হয় না, এটা নিশ্চয়ই কলকাতার কোনও হল থেকে পাইরেসি হয়েছে।

এমন প্রশ্ন আর সন্দেহের খানিক উত্তর মিলেছে ছবিটির সম্পাদক সিমিত রায় অন্তরের অনুসন্ধানে। তার মতে, ছবিটি বাংলাদেশ থেকেই পাইরেসি হয়েছে। এবং সেটি সিনেমা হল থেকে।

সিমিতের ভাষ্য, “সুড়ঙ্গ’র পাইরেসি কপি পর্যবেক্ষণ করে যা বুঝলাম, এটা কোনও রেগুলার শো চলাকালীন রেকর্ড করা হয়নি। কারণ, ভিডিওতে দর্শকদের কোনও রিঅ্যাকশন সাউন্ড নাই। দর্শকদের হাসির শব্দ নেই, কোনও উচ্চবাচ্য নেই! তার মানে, এটা দর্শকশূন্য হলে রেকর্ড করা হয়েছে। ক্যামেরাকে ট্রাইপডে রেখে ভিডিওটি করা হয়েছে। ক্যামেরার কোনও ধরনের নড়াচড়া দেখা যায়নি। অতএব, এটার সঙ্গে সিনেমা হল কর্তৃপক্ষ জড়িত। একটা ফাঁকা হলে ট্রাইপডে ক্যামেরা সেট করে আড়াই ঘণ্টার সিনেমা রেকর্ড করা তো সম্ভব না, যদি হল কর্তৃপক্ষ এতে জড়িত না থাকে।”

সিমিতের বক্তব্য স্পষ্ট, যে হল থেকে এই ছবিটি চুরি হলো সেটির সঙ্গে কর্তৃপক্ষ সরাসরি জড়িত। তা না হলে, ফাঁকা হলে পুরো সিনেমা চালিয়ে ভিডিও ধারণ করা অসম্ভব।

সিমিতের পর্যবেক্ষণে এ-ও বোঝা গেছে, ছবিটি কোন দেশ থেকে পাইরেসি করা হয়েছে। কারণ, অনেকেই বলতে চাইছিলেন কলকাতা যাওয়ার পরই ছবিটি চুরি হলো অনলাইনে। তবে সিমিতের ভাষ্য ভিন্ন, “সুড়ঙ্গ’ বাংলাদেশ থেকেই পাইরেসি হয়েছে। ভারতের সিনেমা কপি আর বাংলাদেশের কপির মধ্যে বেশ কিছু পার্থক্য আছে, যা শুধু আমরাই (পরিচালক, সম্পাদক ও প্রযোজক) জানি। এরমধ্যে একটার কথা বলি, তা হলো পেপসির টাইটেল কার্ড। যা ভারতের অংশে ছিল না।”

শুধু মুভি-সিরিজ ডাউনলোড ওয়েবসাইটে নয়, ইউটিউবেও ছড়িয়ে পড়েছে ‘সুড়ঙ্গ’র অসংখ্য কপি। তবে এটা সরানোর ব্যাপারে সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান। ছবিটির নির্মাতা রায়হান রাফী জানান, কপিরাইট ক্লেইমের মাধ্যমে ইতোমধ্যে ইউটিউবের সব কপি বন্ধ করা হয়েছে। তবে ফেসবুকসহ অন্যান্য মাধ্যমে এখনও রয়ে গেছে কিছু কপি। সেগুলো ব্লক করার বিষয়ে কাজ চলছে।

তবে কি এই ভয়ংকর পরিকল্পিত ডাকাতি যে বা যারা করেছেন তারা ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকবেন! জবাবে নির্মাতা বলেন, ‘আমরা সব পর্যবেক্ষণ করছি। সহজে বিষয়টি ছেড়ে দেওয়ার সুযোগ নেই। কারণ, এই ছবিটির সঙ্গে ইন্ডাস্ট্রির পুনর্জন্মের বিষয় জড়িত। ফলে এটাকে গলাটিপে হত্যা করার মতো ঘটনা। আমরা দেখছি বিষয়টি।’

উল্লেখ্য, ঈদুল আজহা উপলক্ষে মুক্তি পেয়েছে ‘সুড়ঙ্গ’। এর মাধ্যমে বড় পর্দায় অভিষেক হয়েছে আফরান নিশোর। তার সঙ্গে আছেন তমা মির্জা। ছবিটি দেশের বাজারে দারুণ ব্যবসা করছে এখনও। চলতি সপ্তাহে দেশজুড়ে প্রায় অর্ধশত প্রেক্ষাগৃহে চলছে এটি। এছাড়া পশ্চিমবঙ্গ, যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়ায়ও ছবিটি প্রদর্শিত হচ্ছে।

Related News
- Advertisment -

Popular News

error: Content is protected !!