Saturday, May 18, 2024
HomeNewsপুলিশ কনস্টেবল পদে নিয়োগপ্রাপ্ত সবাই পাড়া'র ছেলে

পুলিশ কনস্টেবল পদে নিয়োগপ্রাপ্ত সবাই পাড়া’র ছেলে

ইশরাত মুহাম্মদ শাহ জাহানঃ

পুলিশে প্রথমবারের মতো নতুন নিয়োগবিধি অনুযায়ী ট্রেইনি রিক্রুট কনস্টেবল নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে।

এতে ৩ লাখ ৩৮ হাজার ৫৩৪ জন আবেদনকারীর মধ্যে যাচাই-বাছাই শেষে চূড়ান্ত নিয়োগ পেয়েছেন তিন হাজার জন।

২৭ নভেম্বর পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহা পরিদর্শক (এআইজি) মোঃ কামরুজ্জামানের বরাতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে।

‘চাকরি নয় সেবা’ এ প্রতিপাদ্যে শুরু হওয়া এবার কনস্টেবল নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। আবেদনকারীদের মধ্যে সাত ধাপে বাছাই শেষে কনস্টেবল পদে ৩ হাজার জনকে নিয়োগ দেওয়া হয়ে।

কোনো ধরণের তদবির কিংবা অর্থের লেনদেন ছাড়াই নিরপেক্ষভাবে সম্পূর্ণ স্বচ্ছতার ভিত্তিতে এ নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে বলে পুলিশ সদরদপ্তর থেকে জানানো হয়েছে।

কনস্টেবল পদে মেধা ও শারীরিক দিক থেকে অধিক যোগ্য প্রার্থী নিয়োগের লক্ষ্যে পুলিশে কনস্টেবল নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু হয় চলতি বছরের ২৫ অক্টোবর। তিন হাজার শূন্য পদের বিপরীতে আবেদনকারীর সংখ্যা ছিল ৩ লাখ ৩৮ হাজার ৫৩৪ জন।

এর মধ্যে প্রাথমিক বাছাইয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন ১ লাখ ১৭ হাজার ৬৮ জন।

তাদের মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৬৩৪ জন এবং নারী ১৬ হাজার ৪৩৪ জন। শারীরিক সক্ষমতা যাচাই শেষে ২৩ হাজার ৬৯৭ প্রার্থী লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন। এর মধ্যে ২১ হাজার ৭৫৯ জন পুরুষ এবং ১ হাজার ৯৩৮ জন নারী। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ৭ হাজার ৪০০ জন প্রার্থীর মধ্যে কনস্টেবল পদে চূড়ান্ত নিয়োগ পেয়েছেন ৩ হাজার।

জানা যায়, এবারের কনস্টেবল নিয়োগ পরীক্ষায় অত্যন্ত সাধারণ পরিবারের যেমন- দিনমজুর, কৃষক, ভ্যানচালকের সন্তানরাই বেশিরভাগ চাকরি পেয়েছেন। কোনো ধরনের তদবির বা অর্থছাড়া কনস্টেবল পদে চাকরি পাওয়া সাধারণ পরিবারের তরুণ-তরুণী এবং তাদের বাবা-মার জন্য ছিল স্বপ্নের মতো। এসব পরিবারের সন্তানদের কাছে শুধুমাত্র আবেদন ফি দিয়ে পুলিশের চাকরি পাওয়া ছিল স্বপ্নাতীত।

পুলিশ সদর দপ্তর জানায়, পিআরবি পরিবর্তনের মাধ্যমে মেধা ও শারীরিক যোগ্যতার ভিত্তিতে কনস্টেবল পদে ৭ ধাপে নিয়োগ প্রক্রিয়ার প্রথম ধাপে প্রাথমিক বাছাই, দ্বিতীয় ধাপে শারিরীক মাপ এবং ফিজিক্যাল অ্যানডুরেন্স টেস্ট, তৃতীয় ধাপে লিখিত পরীক্ষা, চতুর্থ ধাপে মনস্তাত্বিক ও মৌখিক পরীক্ষা, পঞ্চম ধাপে প্রাথমিক নির্বাচন, ষষ্ঠ ধাপে পুলিশ ভেরিফিকেশন ও স্বাস্থ্য পরীক্ষা এবং সপ্তম ও সর্বশেষ ধাপ হলো চূড়ান্তভাবে প্রশিক্ষণে অন্তর্ভুক্তকরণ।

প্রার্থীদের শারীরিক সক্ষমতা ৭টি ইভেন্টের মধ্য দিয়ে যাচাই করা হয়েছে।

পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ডক্টর বেনজীর আহমেদ কনস্টেবল নিয়োগের লক্ষ্যে প্রথমেই পিআরবি সংশোধনের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। অনলাইনে আবেদন গ্রহণ এবং ওয়েব বেইজড স্ক্রিনিংয়ের মাধ্যমে কনস্টেবল নিয়োগ পরীক্ষা ডিজিটাইজেশন করা হয়েছে।

কনস্টেবল নিয়োগকে কেন্দ্র করে কেউ যাতে অসাধু পন্থা অবলম্বন করতে না পারে সেজন্য পুরো নিয়োগ প্রক্রিয়া চলাকালীন পুলিশ অত্যন্ত তৎপর ও সচেষ্ট ছিল। কয়েকটি জেলায় কনস্টেবল নিয়োগে প্রতারণার অভিযোগে প্রতারকদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

আইজিপি ডক্টর বেনজীর আহমেদ বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীর সুযোগ্য দিকনির্দেশনা ও সার্বিক তত্ত্বাবধানে বাংলাদেশ পুলিশকে উন্নত দেশের উপযোগী পুলিশ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে কাজ করেছি। এবারের কনস্টেবল নিয়োগ সে প্রক্রিয়ারই অংশ। এজন্য বর্তমান নিয়োগ বিধি সংশোধন করা হয়েছে।

তিনি নিয়োগবিধি সংশোধনে সার্বিক সহায়তা প্রদানের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

ভবিষ্যতে পুলিশের সাব-ইন্সপেক্টর (এসআই) এবং সার্জেন্ট পদে নিয়োগের ক্ষেত্রেও মেধা ও শারীরিক যোগ্যতা সম্পন্ন প্রার্থীরাই নিয়োগ পাবেন বলরও জানান তিনি।

কাকতালীয়ভাবে এবারের পুলিশ কনস্টেবল পদে মহেশখালী উপজেলা থেকে নিয়োগপ্রাপ্ত ছয় জনই পাড়া’র ছেলে। মানে- সবার গ্রামের পাশে “পাড়া” শব্দটি রয়েছে।

মহেশখালী থেকে এবার পুলিশ কনস্টেবল পদে নিয়োগ পেলেন যারাঃ

১- লোকমান হাকিম, শুকরিয়া পাড়া, বড় মহেশখালী।

২- মোঃ মোজাহিদুল ইসলাম, উত্তর সিকদার পাড়া, মাতারবাড়ী।

৩- শাহেদুল ইসলাম শান্ত, মধ্যম পাড়া, কুতুবজোম।

৪- মিনহাজুল ইসলাম মনির, বড় রাখাইন পাড়া, গোরকঘাটা।

৫- সোহাগ মোহন্ত, দক্ষিণ হিন্দু পাড়া,গোরকঘাটা।

৬- মং হ্লা ছিং, বড় রাখাইন পাড়া, গোরকঘাটা।

Related News
- Advertisment -

Popular News

error: Content is protected !!