Sunday, March 3, 2024
HomeSportsতরুণ শামীমের ব্যাটে বাংলাদেশের দাপুটে জয়; Test, ODI'র পর T20 সিরিজও বাংলাদেশের

তরুণ শামীমের ব্যাটে বাংলাদেশের দাপুটে জয়; Test, ODI’র পর T20 সিরিজও বাংলাদেশের

নুর চৌধুরীঃ

একটা জয় ঘুরিয়ে দেয় দলের মোড়, আত্মবিশ্বাসী করে দলের প্রতিটি খেলোয়াড়কে। আর সেই জয় যদি হয় বিশ্বকাপের ফাইনালে, গাবাস্কার-টেন্ডুলকারের দেশ ভারতের বিরুদ্ধে, তাহলে তো আর কথা-ই নেই!

এমন দলের খেলোয়াড়-ই তো শট নির্বাচনে ভুল কম করবে, শট খেলবে আত্মবিশ্বাসের সাথে। মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে, জয় ছিনিয়ে আনবে বারবার, কঠিন মুহুর্তে নিজেকে মেলে ধরবে, সমুন্নত রাখবে জাতীয় পতাকার মান।
বলছিলাম, জিম্বাবুয়ে সিরিজে অভিষিক্ত শামীম হোসেন পাটোয়ারীর কথা।

আপনি যখন কোনো ক্রিকেটারকে চাইবেন, তখন হয় কোনো ভালো ব্যাটসম্যান নয়তো ভালো কোনো বোলারকে বেছে নিবেন। আর এই ‘ভালো’ বাছাইয়ের মানদণ্ডে ফিল্ডিংয়ের কথা নিশ্চয়ই সর্বাগ্রে ভাব্বেন। কিন্তু ক্রিকেটের এই তিন ফরম্যাটই যদি একজনের মধ্যে হয়, তাহলে বিষয়টি কেমন হয়!
হ্যাঁ, আমাদের শামীম এমনই একজন। যার ব্যাটিং-বোলিং-ফিল্ডিং সবই সম্ভাবনা জাগানিয়া। যাকে এক কথায় বলা যায়, ‘ফুল প্যাকেজ অব ক্রিকেট’। বিশ্ব ক্রিকেটের এক নাম্বার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের বিকল্প হওয়ার জন্য এমনই তো হওয়া চাই।

শামীমের মতো এমন সতীর্থ যখন স্কোয়াডে থাকে তখন আকবর আলীদের বিশ্ব জয়ে ভয় কিসের! সেই ভয় কাটাতে এবার মাহমুদুল্লাহ শিবিরে শামীম। তিন ম্যাচ সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে ২২৩.০৮ স্ট্রাইক রেটে মাত্র ১৩ বলে ২৯ রানের ইনিংস খেলে অভিষেকেই চোখ রাঙিয়ে ক্রিকেট বিশ্বকে দিয়ে রাখলেন নিজের আগমনী বার্তা।

যেন জানালেন,
“বড় ভাইয়েরা একা নন, সাথে আছি আমরাও,
ব্যাট-বলের এই লড়াইয়ে পারলে মোদের ঠেকাও।”

সিরিজে ৩য় ও শেষ ম্যাচে ১৯৪ রানের পাহাড়সম লড়াইয়ে দলের সিনিয়র ভাইয়েরা যখন চিন্তিত, তখন ছোট্ট শামীম এসেই দলপতি মাহমুল্লাহর সাথে মেলালেন নিজের ছোট্ট কাঁধটি। যেন বললেন, “ভাই, এত চিন্তা কিসের, আমি আছি তো!” করলেনও তাই।

২৮ বলে ৩৪ রান করে ১৮.৪ ওভারে দলীয় ৫ম ব্যাটসম্যান হিসেবে মুজারাবানির বলে চাকাভারর তালুবন্দি হয়ে দলপতি সাঁজঘরে ফেরলেও জয় নিয়েই মাঠ ছাড়েন সিরিজে আগের ম্যাচে অভিষিক্ত শামীম।
২০৬.৬৭ স্ট্রাইক রেটে মাত্র ১৫ বলে ৩১ রানের হার না মানা ইনিংসটি শামীম সাজিয়েছেন ছয়টি নান্দনিক বাউন্ডারিতে।

ম্যাচ শেষে পুরস্কারটাও পেলেন হাতে নাতে। ম্যাচ কিংবা সিরিজ সেরার পুরস্কার ভাগ্যে না জোটলেও অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ ট্রপিটা নিয়ে তুলে দিলেন এই তরুণেরই হাতে।

সং ক্ষি প্ত স্কো রঃ
জিম্বাবুয়ে ১৯৩/৫(২০.০)
মাদিয়েভার ৫৪(৩৬), চাকাভা ৪৮(২২)
সৌম্য সরকার ২/১৯(৩)

বাংলাদেশঃ ১৯৪/৫(১৯.২)
সৌম্য সরকার ৬৮(৪৯),
মাহমুদুল্লাহ ৩৪(২৮),
শামীম ৩১(১৫)*

ফলাফলঃ
বাংলাদেশ ৫ উইকেটে জয়ী।
সিরিজিঃ ২-১ এ জয়ী বাংলাদেশ।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ ও সিরিজঃ
সৌম্য সরকার (বাংলাদেশ)

Related News
- Advertisment -

Popular News

error: Content is protected !!